দশমিনার রনগোপালদী – উলানিয়া সংযোগ সেঁতু আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্ধোধন।

119

দির্ঘ্য সময় অপেক্ষার পর খুলে দেয়া হলো গলাচিপা উপজেলা ও দশমিনা উপজেলার মিলনবন্ধনের একমাত্র ‘উলানিয়া-রণগোপালদী’সংযোগ সেঁতুটি।

শনিবার বেলা ১১টায় আনুষ্ঠানিকভাবে পটুয়াখালী-৩ আসনের সংসদ সদস্য আখম জাহাঙ্গীর হোসাইন উদ্বোধন করেন।

রতনদিতালতলী ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা খানের সভাপত্তি সেতু উদ্বোধনকালে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী মো. আবুল কালাম আজাদ, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মতিউর রহমান, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (বরিশাল বিভাগ) মো. ফারুক আহম্মেদ, আলীপুরা বাজার সংলগ্ন সুতাবাড়িয়া নদীতে ব্রিজ প্রকল্প পরিচালক মো. আল্লাহ হাফিজ, বরিশাল অঞ্চলের তত্তাবধায়ক প্রকৌশলী মো. নজরুল ইসলাম, নির্বাহী প্রকৌশলী বরিশাল মো. মিজানুর রহমান, তত্তাবধায়ক পকৌশলী পটুয়াখালী অঞ্চল মো. নুর হোসেন হাওলাদার, গলাচিপা

উপজেলা চেয়ারম্যান সামসুজ্জামান লিকন, গলাচিপা নির্বাহী অফিসার শাহ মো. রফিকুল ইসলাম, দশমিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুভ্রা দাস, গলাচিপা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সন্তোষ কুমার দে, দশমিনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আব্দুল আজিজ, গলাচিপা উপজেলা আয়ামলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা টিাটো, যুগ্সাধারণ সম্পাদক সর্দার মু. মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. রুহুল আমিন ভ‚ইয়া, জেলা পরিষদের সদস্য মো. মিজানুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো.মজিবর রহমান প্রমুখ।

এদিক সেঁতুটি চালু হওয়ার পর দুই উপজেলা মানুষের মধ্যে তৈরি হয় মিলণ মেলা। প্রায় অর্ধশতাব্দি যাবত দুই উপজেলার মানুষের প্রাণের দাবি ছিল এ সেঁতুটি নির্মাণের, একসময়ে দশমিনা ছিল গলাচিপা উপজেলার একটি অংশ। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে গলাচিপা থানার দশমিনা, রনগোপালদি, আলীপুরা, বেতাগী সাকনিপুরা, চরবোরহান ও বাউফল উপজেলার বহরমপুর, বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়ন নিয়ে দশমিন উপজেলা গঠন করা হয়।

জাতীয় সংসদের ১১৫ আসন পটুয়াখালী -৩ গলাচিপা ও দশমিনা উপজেলা নিয়ে গঠিত। এমনিতেই আত্মীয়তা ছাড়াও নানাভাবে এ দুই উপজেলার মানুষের মধ্যে রয়েছে হৃদয়ের গভীর ভালবাসা। কিন্তু এ ভালবাসার অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায় রণগোপালদী নদী।

এ নদীতে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর দরপত্র আহবান করে এলজিইডি’র উপ সহকারি প্রকৌশলী মো. কামাল হোসেন জানান, ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে বরিশালের ঠিকাদার মারুফ খানকে ঠিকাদার মনোনীত ক