২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়কে কেন্দ্র উপস্থিত নেতাকর্মীসহ স্থানীয়দের মাঝে মিষ্টি বিতরণ

91

মো:মামুন রেজা, ধামরাই: ঢাকা-২০ আসনের সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা এম এ মালেক বুধবার বিকেলে বারবাড়িয়া স্ট্যান্ডে পথসভায় গ্রেনেড হামলা মামলার রায়কে স্বাগত জানান। ২১শে আগস্টের গ্রেনেট হামলা বাংলাদেশর ২০০৪ সালের ২১শে আগস্ট ঢাকায় অাওমীলীগের এক জনসভায় গ্রেনেড হামলা, যে হামলায় ২৪ জন নিহত হয় এবং তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাসহ প্রায় ৩০০ লোক আহত হয়। এই হামলায় নিহতদের মধ্যে আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নারী নেত্রী মিসেস অাইভি রহমান অন্যতম।
এসময় তিনি বলেন, দীর্ঘদিন পরে হলেও গ্রেনেড হামলা মামলার রায় হওয়ায় আমরা অত্যন্ত খুশি। কিন্তু ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী মাস্টারমাইন্ড তারেক জিয়ার ফাঁসির আদেশ হলে আমরা আরও বেশী খুশি হতাম।
তিনি রায়কে দ্রুত কার্যকর করার দাবি জানান এবং খুশিতে উপস্থিত নেতাকর্মীসহ স্থানীয়দের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করেন।
এর আগে ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়কে কেন্দ্র করে মহাসড়ক নিরাপদ রাখতে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে দিনব্যাপী মহাসড়কে অবস্থান করেছেন ধামরাইয়ের এমপি মুক্তিযোদ্ধা এম এ মালেক। এজন্য সকাল থেকেই রায়ের বিরোধী শক্তির যে কোন ধরনের নাশকতা ঠেকাতে তিনি দলীয় নেতাকর্মীদেরকে ধামরাইয়ে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে সতর্ক অবস্থান নেয়ার নির্দেশ দেন।
বুধবার সকাল ১১ টায় ধামরাই থানা রোড থেকে পাঁচ শতাধিক মোটরসাইকেল নিয়ে বারবাড়িয়া পর্যন্ত মহাসড়কে টহলের পাশাপাশি ঢুলিভিটা, কচমচ, জয়পুরা, কালামপুর, সুতিপাড়া, শ্রীরামপুর, বাথুলিসহ বিভিন্ন পয়েন্টে নেতাকর্মীরা মহাসড়ক পাহারা দেয়। এসময় গ্রেনেড হামলা মামলার অন্যতম প্রধান আসামী তারেক জিয়ার ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেন নেতাকর্মীরা।
দিনব্যাপী কর্মসূচীতে অন্যানের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন, মহিলা আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব লায়ন মিনা মালেক, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সহ-সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শাহীন, জেলা পরিষদ সদস্য মোঃ খায়রুল ইসলাম, সুতিপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রেজাউল করিম রাজা, গাংগুটিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের মোল্লা, পৌর যুবলীগের সভাপতি আমিনুর রহমান, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য এস এম মৃদুল আল মামুন (জয়)।
কুল্লা ইউপি ভারপ্রাপ্ত চেযারম্যান যুবলীগ নেতা বুরহান উদ্দিন,ধামরাই সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান খান হাবিব, সাইদুল ইসলাম পিয়াস, তুষার আহমদ শান্ত সহ ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামীলীগের সর্বস্তরের নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন প্রমুখ।